মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

জেলা পরিষদ এর কার্যবলী

জেলা পরিষদ

 

প্রথম তফসিল

প্রথম অংশ

বাধ্যতামূলক কার্যাবলী

[ধারা ২৭(২) দ্রষ্টব্য]

 

১। জেলার সকল উন্নয়ন কার্যক্রমের পর্যালোচনা।

২। উপজেলা পরিষদ ও পৌরসভা কর্তৃক গৃহীত উন্নয়ন প্রকল্প সমূহের বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা।

৩। সাধারণ পাঠাগারের ব্যবস্থা ও উহার রক্ষণাবেক্ষণ।

৪। উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা বা সরকার কর্তৃক সংরক্ষিত নহে এই প্রকার জনপথ, কালভার্ট ও ব্রীজ এর নির্মাণ, রক্ষণাবেক্ষণ এবং উন্নয়ন।

৫। রাস্তার পার্শ্বে ও জনসাধারণের ব্যবহার্য স্থানে বৃক্ষরোপণ ও উহার সংরক্ষণ।

৬। জনসাধারণের ব্যবহারার্থে উদ্যান, খেলার মাঠ ও উন্মুক্ত স্থানের ব্যবস্থা ও উহাদের রক্ষণাবেক্ষণ।

৭। সরকারী, উপজেলা পরিষদ বা পৌরসভার রক্ষণাবেক্ষণে নহে এমন খেয়াঘাটের ব্যবস্থাপনা ও নিযন্ত্রন।

৮। সরাইখানা, ডাকবাংলা এবং বিশ্রামাগারের ব্যবস্থা্ ও রক্ষণাবেক্ষণ।

৯। জেলা পরিষদের অনুরূপ কার্যাবলী সম্প্রদানরত অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সংগে সহযোগিতা।

১০। উপজেলা ও পৌরসভাকে সহায়তা, সহযোগিতা এবং উৎসাহ প্রদান।

১১। সরকার কর্তৃক জেলা পরিষদের উপর অর্পিত উন্নয়ন পরিকল্পনার বা বাস্তবায়ন।

১২। সরকার কর্তৃক আরোপিত অন্যান্য কাজ।

 

 

দ্বিতীয় অংশ

ঐচ্ছিক কার্যাবলী

[ ধারা ২৭(৩) দ্রষ্টব্য]

(ক) শিক্ষা

 

১। বিদ্যালয় স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ।

২। ছাত্রাবাসের জন্য দালান নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ।

৩। ছাত্র বৃত্তির ব্যবস্থা

৪। শিক্ষক প্রশিক্ষণ।

৫। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অর্থ মঞ্জুরী প্রদান।

৬। শিক্ষামূলক জরিপ গ্রহণ, শিক্ষা পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং উহার বাস্তবায়ন।

৭। শিক্ষা উন্নয়নের লক্ষ্যে গঠিত সমিতিসমূহের উন্নয়ন ও সাহায্য।

৮। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা উন্নয়ন।

৯। স্কুলের শিশু-ছাত্রদের জন্য দুগ্ধ সরবরাহ ও খাদ্যের ব্যবস্থা।

১০। বই প্রকাশনা ও ছাপাখানা বেক্ষণাবেক্ষণ।

১১। এতিম ও দুঃস্থ  ছাত্রদের জন্য বিনা মূল্যে অথবা কম মূল্যে পাঠ্য পুস্ত্তকের ব্যবস্থা।

১২। স্কুরের  বই এবং ষ্টেশনারী মাল বিষয় কেন্দ্র রক্ষণাবেক্ষণ।

১৩। শিক্ষার উন্নয়নের সহায়ক অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণ।

 

 

(খ) সংস্কৃূতি

 

১৪। তথ্য কেন্দ্র স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ।

১৫। সাধারণ সাংস্কৃতির্মলক কর্মকান্ড সংগঠন।

১৬। জনসাধারণের জন্য μক্রীীড়া ও খেলাধুলা উন্নয়ন।

১৭। সরকারী প্রতিষ্ঠান এবং জনসাধারণের ব্যবহার্য স্থানে রেডিও ও টেলিভিশন এর ব্যবস্থা ও রক্ষণাবেক্ষণ।

১৮। যাদুঘর ও আর্ট-গ্যালারি স্থাপন ও প্রদর্শনীর সংগঠন।

১৯। পাবলিক হল, কমিউনিটি সেন্টার প্রতিষ্ঠান এবং জনসভার জন্য স্থানের ব্যবস্থা।

২০। নাগরিক শিক্ষার প্রসার এবং স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও পুনর্গঠন, স্বাস্থ, সমাজ উন্নয়ন, কৃষি শিক্ষা, গবাদি পশু প্রজনন সম্পর্কিত এবং জনস্থার্থ সম্পর্কিত অন্যান্য বিষয়ের উপর তথ্য প্রচার।

২১। মহানবী (সঃ) এর জন্মদিবস, জাতীয় দিবস, জাতীয় শোক

দিবস, শহীদ দিবস ও অন্যান্য জাতীয় অনুষ্ঠান উদ্যাপন।

২২। বিশিষ্ট অতিথিগণের অভ্যর্থনা।

২৩। শরীর চ্চর্চার উন্নয়ন, খেলাধুলায় উৎসাহ দান এবং সমাবেশ ও প্রতিযোগিতামূলক ক্রীড়া ও খেলাধুলার ব্যবস্থা করা।

২৪। স্থানীয় এলাকার ঐতিহাসিক এবং আদি বৈশিষ্ট্য সমূহ সংরক্ষণ।

২৫। সংস্কৃতি উন্নয়নমূলক অন্যান্য ব্যবস্থা।

 

(গ)

সমাজ কল্যাণ

 

২৬। দুঃস্থ ব্যক্তিদের জন্য কল্যাণ সদন, আশ্রয় সদন, এতিম খানা, বিধবা সদন এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠান স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ।

২৭। মৃত নিঃস্ব ব্যক্তিদের দাফনের ও অন্তোষ্টিক্রীয়ার ব্যবস্থা করা।

২৮। ভিক্ষাবৃত্তি, পতিতাবৃত্তি, জুয়া, মাদকদ্রব্য সেবন, মদ্যপান, কিশোর অপারধ এবং অন্যান্য সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ।

২৯। জনগণের মধ্যে সামাজিক, নাগরিক এবং দেশপ্রেম মূলক গুণাবলী উন্নয়ন এবং গৌত্র বা গোষ্ঠিগত, বর্ণগত এবং সম্প্রদায়গত কুসংস্কার নিরুৎসাহিত করা।

৩০। সমাজ সেবার জন্য স্বেচ্ছাসেবকদের সংগঠিত করণ।

৩১। দরিদ্রদের জন্য আইনগত সহায়তা ()।

৩২। নারী ও পশ্চাদপদ শ্রেণীর পরিবারের সদস্যদের কল্যাণমূলক কার্যক্রম গ্রহণ।

৩৩। সালিশী ও আপোষের মাধ্যমে বিরোধ নিস্পত্তির ব্যবস্থা গ্রহণ।

৩৪। সমাজকল্যাণ ও সমাজ উন্নয়নমূলক অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণ।

 

 

 

 

(ঘ) অর্থনৈতিক কল্যাণ

 

৩৫। আদর্শ কৃষিখামার স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ।

৩৬। উন্নত কৃষি পদ্ধতি জনপ্রিয়করণ, উন্নত কৃষি যন্ত্রপাতির সংরক্ষণ ও কৃষকগণকে উক্ত যন্ত্রপাতি ধারে প্রদান এবং পতিত জমি চাষের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ।

৩৭। শস্য পরিসংখ্যান সংরক্ষণ, ফসলের নিরাপত্তা বিধান, বপনের উদ্দেশ্যে বীজের ঋণদান, রাসায়নিক সার বিতরণ এবং উহার ব্যবহার জনপ্রিয়করণ এবং পশু খাদ্যের মওজুদ গড়িয়া তোলা।

৩৮। কৃষি ঋণ প্রদান ও কৃষি শিক্ষার উন্নয়ন এবং কৃষি উন্নয়ন মূলক অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণ।

৩৯। বাঁধ নির্মাণ ও মেরামত এবং কৃষি কাজে ব্যবহার্য পানি সরবরাহ, জমানো ও নিয়ন্ত্রণ।

৪০। গ্রামাঞ্চলে বনভূমি সংরক্ষণ।

৪১। ভূমি সংরক্ষণ ও পুনরুদ্ধার এবং জলাভূমির পানি নিস্কাশন।

৪২। বাজার স্থাপন, নিয়ন্ত্রণ এবং রক্ষণাবেক্ষণ।

৪৩। গ্রামাঞ্চলের শিল্পসমূহের জন্য কাঁচামাল সংগ্রহ এবং উৎপাদিত সামগ্রির বাজারজাত করণের ব্যবস্থা।

৪৪। শিল্প- স্কুল স্থাপন, সংরক্ষণ এবং গ্রামভিত্তিক শিল্পের জন্য শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ প্রদান।

৪৫। গ্রাম্য বিপণী স্থাপন ও সংরক্ষণ।

৪৬। সমবায় আন্দোলন জনপ্রিয়করণ ও সমবায় শিক্ষার উন্নতি সাধন।

৪৭। অর্থনৈতিক কল্যাণের জন্য অন্যান্য  ব্যবস্থা গ্রহণ।

 

(ঙ) জনস্বাস্থ্য

৪৮। জনস্বাস্থ্য বিষয়ক শিক্ষার উন্নয়ন।

৪৯। ম্যালেরিয়া ও সংক্রামক ব্যাধি প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন।

৫০। প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্র স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ।

৫১। ভ্রাম্যমান চিকিৎসক দল গঠন।

৫২। চিকিৎসা সাহায্য প্রদানের জন্য সমিতি গঠনে উৎসাহ দান।

৫৩। চিকিৎসা-শিক্ষার উন্নয়ন এবং চিকিৎসা সাহায্য দানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহে অর্থ মঞ্জুরী প্রদান।

৫৪। কম্পাউন্ডার, নার্স এবং অন্যান্য চিকিৎসা কর্মীদের কাজ ও ডেসপেনসারী পরিদর্শন।

৫৫। ইউনানী, আয়ুর্বেদীয় ও হোমিওপ্যাথিক ডিসপেনসারী প্রতিষ্ঠা, রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিদর্শন।

৫৬। স্বাস্থ্য কেন্দ্র, মাতৃসদন ও শিশু মংগল কেন্দ্র স্থাপন, রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিদর্শন, ধাত্রীদের প্রশিক্ষণ দান এবং মাতা ও শিশুদের কল্যাণের জন্য অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণ।

৫৭। পশু-পাখীর ব্যাধি দূরীকরণ এবং পশু-পাখীদের মধ্যে ছোঁয়াচে রোগের প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ।

৫৮। গবাদি পশু সম্পদ সংরক্ষণ।

৫৯। চারণভূমির ব্যবস্থা ও উন্নয়ন।

৬০। দুগ্ধ সরবরাহ নিয়ন্ত্রণ, দুগ্ধপল্লী স্থাপন এবং স্বাস্থ্য সম্মত আস্থাবলের ব্যবস্থা ও নিয়ন্ত্রণ।

৬১। গবাদি খামার ও দুগ্ধ খামার স্থাপন ও সংরক্ষণ।

৬২। হাঁস মুরগীর খামার স্থাপন ও সংরক্ষণ।

৬৩। জন স্বাস্থ্য পশুপালন ও পাখী কল্যাণ উন্নয়নের জন্য অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণ।

 

 

 

(ঙ) গণপূর্ত

 

৬৪। যোগাযোগ ব্যবস্থহার উন্নতি সাধন।

৬৫। পানি নিস্কাশন পানি সরবরাহ ব্যবস্থা, ভূ-উপরিস্থ সুপেয় পানির জলাশয় সংরক্ষণ, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ, রাস্তা পাককরণ ও অন্যান্য জনহিতকর অত্যাবশস্বকীয় কাজ করা।

৬৬। স্থানীয় এলাকার নক্শা প্রণয়ন।

৬৭। এই আইন বা অন্য কোন আইনের অধীনে নাস্ত্য কোন দায়িত্ব পালনের জন্য প্রয়োজনীয় অথচ এই আইনের অন্যত্র উল্লেখ নাই এমন জনকল্যাণমূলক অত্যাবশ স্বকীয় কাজের নির্মাণ ও ব্যবস্থাপনা।

 

ছ) সাধারণ

৬৮। স্থানীয় এলাকা ও উহার অধিবাসীদের ধর্মীয়, নৈতিক ও বৈষয়িক উন্নতি সাধনের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ।

 

 

 

দ্বিতীয় তফসিল

(জেলা পরিষদ কর্তৃক আরোপনীয় কর, রেইট, টোল এবং ফি)

[ ধারা ৫১ দ্রষ্টব্য ]

 

 

 

১। স্থাবর স্থানন্তরেররের উপর ধার্য করের অংশ।

২। বিজ্ঞাপনের উপর কর।

৩। পরিষদের রক্ষণাবেক্ষণাধীন রাস্তা, পুল ও ফেরীর উপর টোল।

৪। পরিষদ কর্তৃক জনকল্যাণমূলক কাজ সম্পাদনের জন্য রেইট।

৫। পরিষদ কর্তৃক স্থাপিত বা পরিচালিত স্কুলের ফিস।

৬। পরিষদ কর্তৃক কৃত জনকল্যাণমূলক কাজ হইতে প্রাপ্ত উপকার গ্রহণের জন্য ফিস।

৭। পরিষদ কর্তৃক কৃত কোন বিশেষ সেবার জন্য ফিস।

৮। সরকার কর্তৃক পরিষদকে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে আরোপিত কোন কর।

 

তৃতীয় তফসিল

(এই আইনের অধীন অপরাধসমূহ)

[ ধারা ৫১ দ্রষ্টব্য]

 

১। পরিষদ কর্তৃক আইনানুগভাবে ধার্যকৃত কর, টোল, রেইট ও ফিস ফাঁকি দেওয়া।

২। এই আইন, বিধি বা প্রবিধানের অধীন যে সকল বিষয়ে পরিষদ কোন তথ্য চাহিতে পারে সেই সকল বিষয়ে পরিষদের তলব অনুযায়ী তথ্য সরবরাহে ব্যর্থতা বা ভূল তথ্য সরবরাহ।

৩। এই আইন, বিধি বা প্রবিধানের বিধান অনুযায়ী যে কার্যের জন্য লাইসেন্স বা অনুমতি প্রয়োজন হয় সে কার্য বিনা লাইসেন্স বা বিনা অনুমতিতে সম্পাদন।

৪। পরিষদের অনুমোদন ব্যাতিরেকে সর্ব সাধারণের ব্যবহার্য কোন জনপথে অবৈধ অনুপ্রবেশ।

৫। পানীয় জল দৃষিত বা ব্যবহারের অনুপযোগী হয় এমন কোন কাজ করা।

৬। জন স্বাস্থ্যর পক্ষে পিজজনক হওয়ার সন্দেহে এই আইনের অধীন কোন উৎস হইতে পানি পান করা নিষিদ্ধ হওয়া সত্বেও ঐ উৎস হইতে পানি পান করা।

৭। জনসাধারণের ব্যবহার্য কোন পানীয় জলের উৎসের সন্নিকটে গবাধিপশু বা জীবজন্তুকে পানি পান করানো, পায়খানা প্রস্রাব করানো বা গোসল করানো।

৮। আবাসিক এলাকা হইতে এই আইনের অধীন নির্ধারিত দুরত্বের মধ্যে অবস্থিত কোন পুকুরে বা ডোবায় অথবা উহার সন্নিকটে শন, পাট বা অন্য গাছপালা ডুবাইয়া রাখা।

৯। আবাসিক এলাকা হইতে এই আইনের অধীন নির্ধারিত দুরত্বের মধ্যে চামড়া রং করা বা পাকা করা।

১০। আবাসিক এলাকা হইতে এই আইনের অধীনে নির্ধারিত দুরত্বের মধ্যে মাটি খনন, পাথর বা অন্য কিছু খনন করা।

১১। আবাসিক এলাকা হইতে পরিষদ কর্তৃক নিষিদ্ধ দুরত্বের মধ্যে ইটের ভাটি, চূণ ভাটি, কাঠ-কয়লা ভাটি ও মৃৎ শিল্প স্থাপন।

১২। আবাসিক এলাকা হইতে পরিষদ কর্তৃক নিষিদ্ধ দুরত্বের মধ্যে মৃত জীবজন্তুর দেহাবশেষ ফেলা।

১৩। এই আইনের অধীন নির্দেশিত হওয়া সত্বেও, কোন জমি বা ইমারত হইতে আবর্জনা, জীবযন্তুর বিষ্টা, সার অথবা দুর্গন্ধযুক্ত অন্য কোন পদার্থ অপসারণে ব্যর্থতা।

১৪। এই আইনের অধীনে নির্দেশিত হওয়া সত্বেও কোন শৌচাগার, প্রস্রাবখানা, নর্দমা, মুলকুন্ড, পানি, আবর্জনা অথবা বর্জ্য পদার্থ রাখিবার জন্য অন্যান্য স্থান বা পাত্র আচ্ছাদনে, অপসারণে, মেরামতে, পরিস্কার করিতে, জীবাণুমুক্ত করিতে অথবা যথাযথভাবে রক্ষণ করিতে ব্যর্থতা।

১৫। এই আইনের অধীনে কোন আগাছা, ঝোপছাড় বা লতা গুল্ম জনস্বাস্থের বা পরিবেশের জন্য প্রতিকুল ঘোষণা করা সত্বেও উহা অপসারণ বা পরিস্কার করিতে সংশ্লিষ্ট জমির মাললেকর বা দখলদারের ব্যর্থতা।

১৬। জনপথ সংলগ্ল কোন স্থানে জন্মানো কোন আগাছা, লতা গুল্ম বা গাছপালা জনপথের উপর ঝুলিয়া পড়িয়া অথবা জনসাধারণের ব্যবহার্য পানির কোন পুকুর, কুয়া বা অন্য কোন উৎসের উপর ঝুলিয়া পড়িয়া চলাচলের বিঘ্ন সৃষ্টি করা সত্বেও বা পানি দৃষিত করা সত্বেও অথবা উহা এই আইনের অধীনে জনস্বাস্থ্য হানিকর বলিয়া ঘোষিত হওয়া সত্বেও সংশ্লিষ্ট স্থানের মালিক বা দখলদার কর্তৃক উহা কাটিয়া ফেলিতে, অপসারণ করিতে বা ছাটিয়া ফেলতে ব্যর্থতা।

১৭। এই আইনের অধীন জন স্বাস্থের জন্য বা পার্শ্ববর্তী এলাকার জন্য ক্ষতিকর বলিয়া ঘোষিত কোন শস্যের চাষ করা, সার প্রয়োগ করা বা ক্ষতিকর বলিয়া ঘোষিত পন্থায় জমিতে সেচের ব্যবস্থা করা।

১৮। এই আইনের বিধান অনুসারে প্রয়োজনীয় অনুমতি ব্যতিরেকে ইচ্ছকৃতভাবে অথবা অহবেলাভরে পায়খানার গর্ত বা পায়খানার নালা হইতে মলমৃত্র বা অন্য কোন ক্ষতিকর পদার্ল কোন জনপথ বা জনসাধারণের কোন স্থানের উপর ছড়াইয়া পড়িতে বা গড়াইয়া যাইতে দেওয়া বা এতদ্দুদ্দেশ্যে ব্যবহৃত নয় এই প্রকার কোন নর্দমা, খাল বা পযঃ প্রণালীর উপর পতিত হইতে দেওয়া।

১৯। এই আইনের অধীন জন স্বাস্থ্যের জন্য বা পার্শ্ববর্তী এলাকার জন্য ক্ষতিকর বলিয়া ঘোষিত কোন কুপ, পুকুর বা পানি সরবাহের অন্য কোন উৎস পরিস্কার করিতে, মেরামত করিতে, আচ্ছাদান করিতে বা ভরাট করিতে বা উহা হইতে পানি নিস্কাশন করিতে উহার মালিক বা দখলকারের ব্যর্থতা।

২০। এই আইনের বিধান অনুযায়ী নির্দেশিত হইয়া কোন জমি বা দালান হইতে কোন পানি বা আবর্জনা নিস্কাশনের জন্য যথোযুক্ত পাইপ বা নর্দমার ব্যাব্যস্থা করিতে জমি বা দালানের মালিক বা দখলদারের ব্যর্থতা।

২১। চিকিৎসক হিসেবে কর্তব্যরত থাকাকালে সংক্রামক রোগের অস্তিত্ব সম্পর্কে অবগত হওয়া সত্বেও পরিষদের নিকট তৎসম্পর্কে রিপোর্ট করিতে কোন চিকিৎসকের ব্যর্থতা।

২২। কোন দালানে সংক্রামক রোগের অতিসত্ব সম্পর্কে জানা সত্বেও তৎসমঙর্কে কোন ব্যক্তির পরিষদকে খবর দিতে ব্যর্থতা।

২৩। সংক্রামক রোগজীবাণু দ্বারা আক্রান্ত কোন দালানকে রোগজীবাণু মুক্ত করিতে উহার মালিক বা দখলদারের ব্যর্থতা।

২৪। সংক্রামক ব্যাধির আক্রান্ত ব্যক্তি কর্তৃক খাদ্য বা পানীয় বিষয়।

২৫। রোগজীবাণু দ্বারা আক্রান্ত কোন যানবাহনের মালিক বা চালক কর্তৃক উহাকে রোগজীবাণুমুক্ত করিতে ব্যর্থতা।

২৬। দুগ্ধের জন্য বা খাদ্যের জন্য রক্ষিত কোন প্রাণীকে ক্ষীতকর কোন দ্রব্য খাওয়ানো বা খাওয়ার সুযোগ দেওয়া।

২৭। এতদুদ্দেশ্যে নির্ধারিত সহান ব্যতিরেকে অন্য কোন স্থানে মাংস বিষয়ের উদ্দেশ্যে কোন প্রাণী জবাই করা।

২৮। আক্রান্ত তার চাহিদা মোতাবেক খাদ্য বা পানীয় সরবরাহ না করিয়া নিন্ম বা ভিন্ন মানের খাদ্য বা পানীয় সরবরাহ করিয়া তাকে ঠকানো।

২৯। ভিক্ষার জন্য বিরক্তিকর কাকুতি মিনতি করা বা শরীরের কোন বিকৃত বা গলিত অংগ বা নোংরা ক্ষত স্থান প্রদর্শন করা।

৩০। পতিতালয় স্থাপন বা পতিতা বৃত্তি পরিচালনা করা।

৩১। কোন বৃক্ষ বা উহার শাখা কর্তৃন, বা কোন দালান বা উহার কোন অংশ নির্মাণ বা ভাংচুর এই আইনের অধীনে জনসাধারণের জন্য বিপদজনক বা বিরক্তিকর বলিয়া ঘোষণা করা সত্বেও উহার কর্তন, নির্মাণ বা ভাংচুর।

৩২। পরিষদের অনুমোদন ব্যতিরেকে পরিষদের ভূমিতে বা আওতাধীন এলাকায় কোন রাস্তা নির্মাণ।

৩৩। এতদুদ্দেশ্যে নির্ধারিত কোন স্থান ব্যতীত অন্য কোন স্থানে কোন বিজ্ঞাপন, নোটিশ, প্লাকার্ড বা অন্য কোনবিধ প্রচারপত্র আটিয়া দেওয়া।

৩৪। এই আইনের অধীনে বিপজ্জনক বলিয়া ঘোষিত পদ্ধতিতে কাঠ, ঘাস, খড় বা অন্য কোন দাহ্য বস্তাপকৃত করা।

৩৫। এই আইনের অধীনে প্রয়োজনীয় অনুমতি ব্যতিরেকে কোন রাস্তার উপরে পিকেটিং করা, জীবযন্তু রাখা, যানবাহন জমা করিয়া রাখা, অথবা কোন রাস্তাকে যানবাহন বা জীবজন্তুকে থামাইবার স্থান হিসাবে অথবা তাঁবু খাটা ইবার স্থান হিসাবে ব্যবহার করা।

৩৬। গৃহপালিত জীবজন্তুকে ইতস্ততঃ ঘুরিয়া বেড়াইতে দেওয়া।

৩৭। আগ্নেয়াস্ত্র, পটকা বা আতষবাজী এমনভাবে ছোঁড়া অথবা উহাদের লইয়া এমনভাবে খেলায় বা শিকারে রত হওয়া যাহাতে পথচারী বা পার্শ্ববর্তী এলাকায় বসবাসকারী বা কর্মরত লোকজনের বা কোন সমঙত্তির বিপদ বা ক্ষতি হয় বা হইবার সম্ভাবনা থাকে।

৩৮। পথচারীদের বা পার্শ্ববর্তী এলাকায় বসবাসকারী বা কর্মরত লোকজনের বিপদ হয় বা বিপদ হইবার সম্ভাবনা থাকে এমনভাবে গাছ কাটা, দালান কোঠা নির্মাণ বা খনন কাজ পরিচালনা করা অথবা বিস্ফোরণ ঘটানো।

৩৯। এই আইনের অধীনে প্রয়োজনীয় অনুমতি ব্যতিরেকে স্বীকৃত গোরস্থান বা শ্মশান ছাড়া অন্য কোথাও লাশ দাফন করা, শবদাহ করা।

৪০। হিংস্র কুকুর বা অন্য কোন ভয়ংকর প্রাণীকে নিয়মল্গণবিহীনভাবে ছাড়িয়ে দেওয়া বা লেলাইয়া দেওয়া।

৪১। এই আইনের অধীনে বিপদজনক বলিয়া ঘোষিত কোন দালানকে ভাংগিয়া ফেলিতে বা উহাকে মজবুত করিতে ব্যর্থতা।

৪২। এই আইনের অধীনে মনুষা-বসবাসের অনুপযোগী বলিয়া ঘোষিত দালান কোঠা বসবাসের জন্য ব্যবহার করা বা কাহাকেও উহাতে বসবাস করিতে দেওয়া।

৪৩। এই আইনের বিধান মোতাবেক কোন দালান চুণকাম বা মেরামত করিবার প্রয়োজন হইলে তাহা করিতে ব্যর্থতা।

৪৪। বিধি দ্বারা অপরাধ বলিয়া ঘোষিত কোন কাজ করা।

৪৫। এই আইন বা কোন বিধি বা তদধীনে প্রদত্ত কোন আদেশ, নির্দেশ বা ঘোষণা বা জারীকৃত কোন বিজ্ঞপ্তির খেলাপ।

৪৬। এই তফসিলে উলেলখিত অপরাধসমূহ সংঘটনের চেষ্টা বা সহায়তা করা।